• বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:২৬ অপরাহ্ন
  • Bengali Bengali English English

পেকুয়ার রাজাখালীতে মাদ্রাসা ছাত্রীর লাশ উদ্ধার

এম দিদারুল করিম
আপডেট : শনিবার, ২৪ জুলাই, ২০২১

কক্সবাজারের পেকুয়ায় মাদ্রাসায় পড়ুয়া এক ছাত্রী লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার সকালে উপজেলার রাজাখালী ইউনিয়নের ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের হাজ্বির পাড়া এলাকায় ওই ছাত্রীর বাড়ি থেকে তাঁর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহত ওই ছাত্রীর নাম তাবাচ্ছুমা জন্নাত রেখা মনি (১৪)। সে দিনমজুর আইয়ুব আলীর একমাত্র মেয়ে বলে জানাগেছে। পেকুয়া থানা পুলিশ নিহতের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরী করে ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

স্থানীয় সুত্রে জানাযায়, তাবাচ্ছুমা জন্নাত রেখা মনি রাজাখালী বেশারাতুল উলুম সিনিয়র মাদ্রসার ৮ম শ্রেণিতে পড়ুয়া মেধাবী ছাত্রী। বিগত কয়েক বছর ধরে আবুল কাশেম নামের এক ছাত্রের সাথে রেখা মনির প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে । আবুল কাশেম একই মাদ্রাসার ছাত্র ও বাঁশখালী ছনুয়ার এলাকার মকসুদ আহমদের ছেলে। ঘটনারদিন প্রেমিক আবুল কাশেম তাঁর নিকটতম আত্মীয় হাজির পাড়ার মৃত বাদশা মিয়ার ছেলে আলমগীর ও নুরুল হকের ছেলে রবি আলম ওই ছাত্রীকে গভীর রাতে বিয়ের প্রলোভনে ফেলে দক্ষিণ হাজী পাড়ার মসজিদের পুকুরের বাসায় নিয়ে ইচ্ছার বিরুদ্ধে অনৈতিক কাজে লিপ্ত করার চেষ্টা করে। শোর-চিৎকারে প্রতিবেশীররা এগিয়ে এসে উদ্ধার করে। পরে অপমাণ সইতে না পেরে কিটনাশক পান করে আত্মহত্যা করেছে বলে ধারণা এলাকবাসীর।

স্থানীয় ইউপি সদস্য নেজাম উদ্দিন নেজু জানান, বেশারতুল উলুম মাদ্রাসার ছাত্র আবুল কাশেমের সাথে রেখামণির প্রেমের সম্পর্ক ছিল। প্রেমিক আবুল কাশেম শুক্রবার দিনগত রাতে কোন একসময় রেখামনিকে ধর্ষণ চেষ্টা চালালে স্থানীয়রা দেখতে পায়। সেখান থেকে উদ্ধার করে বাড়িতে পৌঁছে দেয়। এর পর রাতে বিষপান করে আত্মহত্যা করে বলে মেয়ের পরিবার এবং এলাকাবাসীদের কাছ থেকে জেনেছি।

নিহত ছাত্রীর পিতা আইয়ুব আলী বলেন, মাদ্রাসায় পড়ুয়া আমার মেয়েকে স্থানীয় কিছু বখাটের প্রতিনিয়ত উত্তক্ত করে আসছে । এর জের ধরে শনিবার রাতে বিষপান করেছে।

এ বিষয়ে পেকুয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক ( তদন্ত) কানন সরকারের কাছে জানতে চাইলে বলেন, তাবাচ্ছুমা জন্নাত নামে এক কিশোরীর বিষপানে আত্মহত্যার খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আরো বিভন্ন বিভাগের নিউজ